এডুকেশন টুডে

  • Full Screen
  • Wide Screen
  • Narrow Screen
  • Increase font size
  • Default font size
  • Decrease font size

জিআরই জিম্যাট : বিদেশে উচ্চশিক্ষায় সহায়ক

ইমেইল প্রিন্ট

বিশ্বায়নের যুগে উচ্চশিক্ষার দ্বার সবার জন্য উন্মুক্ত। ইচ্ছে করলেই যে কেউ যেকোনো দেশে গিয়ে উচ্ছ শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে। যদি তার ইচ্ছা আর নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস থাকে। এদেশের শিক্ষার্থীরা প্রতি বছরই বিশ্বের বিভিন্ন দেশে উচ্চশিক্ষার উদ্দেশে দেশ ছাড়ছে।
উচ্চশিক্ষার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো এখন বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের প্রথম পছন্দ। প্রকৌশল হোক কিংবা বাণিজ্য হোক দেশে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের পড়াশোনা শেষ করেই শিক্ষার্থীরা মাস্টার্স বা পিএইচডি অর্জনের জন্য বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আবেদন শুরু করেন।
জিআরই, জিম্যাট দুটো পরীক্ষাই যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশে স্নাতকোত্তর পর্যায়ে ভর্তির জন্য প্রাথমিক শর্তগুলোর একটি। এমবিএ কিংবা বাণিজ্যের বিষয়গুলোতে পড়ার জন্য জিম্যাট স্কোর জরুরি শর্ত। অন্য যেকোনো বিষয়ে পড়তে জিআরই স্কোর গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি, স্কলারশিপ ও ফান্ডিং অনেক ক্ষেত্রে নির্ভর করে এই দুই পরীক্ষার স্কোরের উপর।
জিআরই : জিআরইর সংক্ষিপ্ত রূপ গ্র্যাজুয়েট রেকর্ডস এক্সামিনেশনসের যুক্তরাষ্ট্রের এডুকেশনাল টেস্টিং সার্ভিস (ইটিএস) এই পরীক্ষার তত্ত্বাবধায়ক। ইটিএস অনুমোদিত নির্ধারিত পরীক্ষার কেন্দ্রে কম্পিউটারের মাধ্যমে পরীক্ষা দিতে হয়। ছয়টি অংশে বিভক্ত এ পরীক্ষার মোট সময় তিন ঘণ্টা ৪৫ মিনিট।
লিখিত পরীক্ষা : শুরুতেই দুটি নিবন্ধ লিখতে হয়। ইস্যু টাস্ক ও আর্গুমেন্ট টাস্ক নামের এই অংশে বরাদ্দ ৩০ মিনিট করে মোট এক ঘণ্টা সময়। ইস্যু টাস্কে একটি বিষয়ে দুটি বক্তব্য দেওয়া হয়। সেই বক্তব্যের পক্ষে বা বিপক্ষে যুক্তি লিখতে হয়। পরের অংশে আর্গুমেন্ট টাস্কে একটি বিষয়ে বক্তব্য তুলে ধরা হয়। যুক্তি দিয়ে সেই বক্তব্যের পেছনের কারণ, আলোচিত দিক, দুর্বলতা বা শক্তি সম্পর্কে লিখতে হয়। শূন্য থেকে ৬ নম্বরের মধ্যে স্কোর দেওয়া হয়।
ভারবাল রিজনিং : এ অংশ ২ ভাগে বিভক্ত থাকে এই অংশের জন্য মোট ৬০ মিনিট বরাদ্দ। ৩০ মিনিটে আলাদাভাবে দুই অংশে ২০টি করে ৪০টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হয়।
এ অংশে এমসিকিউ ধরনের শূন্যস্থান পূরণ, বাক্য স¤পূর্ণ করা, রিডিং কমপ্রিহেনশনের প্রশ্ন আসে।
কোয়ানটিটেটিভ রিজনিং: এ অংশও দুই ভাগে বিভক্ত, মোট সময় ৭০ মিনিট। ৩৫ মিনিটে আলাদাভাবে দুই অংশে ২০টি করে ৪০টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হয়।
সাধারণ গাণিতিক হিসাব, বীজগণিত ও জ্যামিতির ওপর বিভিন্ন প্রশ্ন আসে।
অন্যান্য অংশ : জিআরই পরীক্ষায় গবেষণা, পরীক্ষামূলক নামে আরেকটি অংশ থাকে। এই অংশের নম্বর যোগ হয় না। তবে শিক্ষার্থীদের জানানো হয় না কোন অংশটি গবেষণা বা পরীক্ষামূলক অংশ।
স্কোর : জিআরই পরীক্ষার স্কোর প্রকাশের পাঁচ বছর পর্যন্ত মূল্যায়ন করা হয়। ভার্বাল ও কোয়ানটিটেটিভ অংশে ১৩০ থেকে ১৭০-এর মধ্যে স্কোর প্রদান করা হয়। এ ছাড়া অ্যানালাইটিক্যাল রাইটিংয়ে শূন্য থেকে ৬-এর মধ্যে নম্বর দেওয়া হয়। এ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র, ধরন ও রেজিস্ট্রেশন সম্পর্কে জানতে লগইন করুন ets.org ওয়েবসাইটে।
জিম্যাট
জিম্যাট হলো গ্র্যাজুয়েট ম্যানেজমেন্ট অ্যাডমিশন টেস্ট। সাধারণত যুক্তরাষ্ট্রে এমবিএ ডিগ্রির জন্য পড়াশোনার জন্য এই পরীক্ষার স্কোর প্রয়োজন। চারটি অংশে বিভক্ত এ পরীক্ষার সময় থাকে তিন ঘণ্টা ৩০ মিনিট।
অ্যানালাইটিক্যাল রাইটিং অ্যাসেসমেন্ট :
এ অংশে ৩০ মিনিটে একটি প্রশ্নের উত্তর দিতে হয়। একটি বক্তব্য প্রশ্ন হিসেবে দেওয়া হয়। আপনাকে সে ঘটনা বা সিদ্ধান্ত বিশ্লেষণ করতে হবে। নিজের মতামত নয়, ঘটনাকে ব্যাখ্যা করতে হয়। ১ থেকে ৬-এর মধ্যে নম্বর দেওয়া হয়।
ইন্টিগ্রেটেড রিজনিং : এই অংশে গ্রাফিকস ইন্টারপ্রিটেশন, টু পার্ট অ্যানালাইসিস, টেবিল অ্যানালাইসিস ইত্যাদি বিশ্লেষণ করে ৩০ মিনিটে ১২টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হয়।
কোয়ানটিটেটিভ : সাধারণ গণিত, বীজগণিত ও জ্যামিতি থেকে ৩৭টি প্রশ্ন থাকে। মোট সময় ৭৫ মিনিট। এতে ডেটা সাফিসিয়েন্সি-সংক্রান্ত প্রশ্ন থাকে।
ভার্বাল : রিডিং কমপ্রিহেনশন, ক্রিটিক্যাল রিজনিং, বাক্য সংশোধনের ওপর ৭৫ মিনিটে ৩৭টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হয়।
স্নাতক পড়ার সময়েই জিআরই/জিম্যাট পরীক্ষার প্রস্তুতি শুরু করা যেতে পারে। বছরের বিভিন্ন সময়ে পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ থাকে, তাই হাতে যথেষ্ট সময় নিয়ে প্রস্তুতি গ্রহণ করা যায়।
ঢাকার আমেরিকান সেন্টার ও ইএমকে সেন্টার থেকে পরীক্ষার নিবন্ধন, ফি, পরীক্ষার প্রস্তুতি সম্পর্কে তথ্য জানতে পারবেন। ঢাকার বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান জিআরই ও জিম্যাট পরীক্ষার বিভিন্ন বই ও পড়াশোনার জন্য প্রস্তুতি নিতে সহায়তা করে।
বিস্তারিত জানাতে যোগাযোগ করতে পারেন
জিআরই সেন্টার: ০১৯২১০৮০৮৪৮,
জিইডি সেন্টার: ০১৯১৪৮৭১৯৬৫।
এ ছাড়া ফেসবুকে fb.com/groups/Higher StudyAbroad থেকে সাহায্য নিতে পারেন।

Share/Save/Bookmark